সবচেয়ে লাভজনক ব্লগ নিশ/টপিক। Most profitable blogging niches 2022.

আসসালামুআলাইকুম । ব্লগিং শুরু করতে গেলে আগে যে বিষয়টি মাথায় আসে সেটি হচ্ছে ব্লগিং-এর টপিক বা ব্লগিং নিস। অনেকেই ব্লগিংয়ের করার চিন্তা করেন কিন্তু কোন টপিকস বা নিস ঠিক করেননি। আপনাকে ব্লগিং শুরু করার চিন্তা করার সঙ্গে সঙ্গেই কোন নিস নিয়ে ব্লগিং করতে চান এটি ঠিক করতে হবে ‌।

Most profitable blogging niche 2022


 এর মানে ব্লগিং নিস হচ্ছে আপনি যে বিষয়ে লিখবেন তার সংক্ষিপ্ত ক্যাটাগরি। অধিকাংশ ব্লগাররা ব্লগিং শুরু করার পরপরই ব্লগিং করার মন মানসিকতা হারিয়ে ফেলে। এর প্রথম ও প্রধান কারন হচ্ছে নির্দিষ্ট করে ব্লগিং নিস বেঁচে না নেওয়া। হুট করে কোন একটা বিষয়ের উপর কোনো কিছু লেখার পরে যখন ওই বিষয়ে আর অভিজ্ঞতা না থাকে তখন সে ব্লগিং করার মন-মানসিকতা হারিয়ে ফেলে। তাই প্রত্যেকটা নতুন ব্লগারের উচিত নির্দিষ্ট করে নিস বা টপিক বেছে নিয়ে ব্লগিং শুরু করা।


আজকে আপনাদেরকে গুরুত্বপূর্ণ এবং লাভজনক কয়েকটি niche নাম বলবো। এই পোস্টটি যে পড়ছে সে এই পুরো পোস্টটি পড়ার পর অনেকগুলো ব্লগিং নিজবা টপিকস এর আইডিয়া খুঁজে বের করতে পারবেন। তাহলে চলুন আমরা জেনে নেই সব থেকে লাভজনক বেশি ট্রাফিক যুক্ত বা ভিজিটর যুক্ত নিস কি কি

The most profitable blogging niches 2022

নিচের লেখা গুরুত্বপূর্ণ নিস বা টপিকগুলো থেকে যেকোন টপিক বেছে নিয়ে আপনি ব্লগিং শুরু করতে পারেন ।এই নিশ বা টপিকগুলো নিয়ে আপনি ব্লগিং করলে এই বিষয়ে একটু পড়াশোনা বা ঘাটাঘাটি করে অভিজ্ঞতা অর্জন করে নিবেন তাহলে আপনি ব্লগিং এ কখনো পিছু হটবেন না.

1. Digital Marketing.

বর্তমান সময়ে অনলাইন জব ভিত্তিক একটি সুন্দর টপিকস ডিজিটাল মার্কেটিং। বর্তমানে ছাত্রছাত্রী এবং মধ্য বয়সী লোকেরা সবাই এই কাজটিকে বেশি পছন্দ করে। ডিজিটাল মার্কেটিং এখন মোবাইল ফোন দিয়ে করা যায় তাই এটি অত্যাধিক জনপ্রিয় বিশ্বের প্রায় সব দেশের 70 শতাংশ মানুষ নিয়মিত গুগোল এ ডিজিটাল মার্কেটিং এর গাইডলাইন গুলো সার্চ করছে। 

অতএব, আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিষয়ে ব্লগিং করেন তাহলে আপনি অধিক পরিমাণে ভিজিটর পাবেন। এবং এ বিষয়ে একটি অভিজ্ঞতা থাকলে আপনি সুন্দর একটি ব্লগ তৈরি করে অনেক ভিজিটর ধরে রাখতে পারবেন এবং অত্যাধিক উৎসাহিত হবেন।
বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় মার্কেটিং অর্থাৎ ডিজিটাল মার্কেটিং সমস্ত মানুষের part-time পেশা হিসেবে নয় অধিকাংশ মানুষের ফুলটাইম পেশা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে।

 অতএব এ বিষয়ে যত দিন যাচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা তত বাড়ছে তাই এ বিষয়ে ব্লগিং করলে আপনার পিছু হটার দরকার নেই। ডিজিটাল মার্কেটিং এর কিছু শাখা টপিকস বা নিস নিচে উল্লেখ করা হলো।
  1. Facebook marketing 
  2. Email marketing 
  3. Social media marketing 
  4. Affiliate marketing 
  5. Content marketing

2. Online Earning

অনলাইন আর্নিং বর্তমান সময়ে একটি অতি পরিচিত শব্দ বা বাক্য। অনলাইন আর্নিং বা অনলাইনে ইনকাম সম্পর্কে গুগলে সার্চ করলে অসংখ্য ওয়েবসাইট, ব্লক সাইট ইত্যাদি পাওয়া যায়। 

অতএব বর্তমান সময়ের ঘরে বসে উপার্জনের একমাত্র জনপ্রিয় মাধ্যম অনলাইন আর্নিং। আপনি যদি ফেসবুক ইউটিউব বা যে কোন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন তাহলে সেখানে দেখতে পাবেন অসংখ্য পোস্ট ভিডিও ইত্যাদি এই বিষয়ে। অতএব ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় 90 শতাংশ লোকই চেষ্টা করছে অনলাইনে উপার্জন করার। প্রতিদিন পুরো বিশ্ব থেকে গুগলে মিলিয়ন মিলিয়ন সার্চ করা হয় অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায় এ বিষয়ে।

অতএব অনলাইন আর্নিং বা অনলাইনে উপার্জন এই বিষয়ে যদি আপনি ব্লগিং করেন এই নিস নিয়ে তাহলে ব্লগিংয়ে কখনো আপনাকে পিছু ফিরে তাকাতে হবে না। আপনি সবসময় টপ-লেভেল এবং নাম্বারে থাকতে পারবেন। অনলাইন আর্নিং এখন এতটাই জনপ্রিয় যে ছোট থেকে বড় সবাই এটিকে খুঁজে চলেছে। অতএব অনলাইন আর্নিং এর উৎস গুলো খুঁজে খুঁজে আপনাকে ব্লগিং করতে হবে সুন্দরভাবে। তাহলে আপনি এই নিস নিয়ে কাজ করে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবে।

 অনলাইন আর্নিং নিস বা টপিকস একটি মাল্টিপল নিস বা টপিকস। কেননা এর ভিতরে রয়েছে অনেক ধারা নিচে কয়েকটি অনলাইন আর্নিং-এর সাব-ক্যাটাগরি উল্লেখ করা হলো:

  1. Freelancing 
  2. Digital Marketing 
  3. YouTube marketing 
  4. Blogging 
  5. Reselling 
  6. Web development 
  7. Software development 
ইত্যাদি মাল্টিপল টপিকস গুলো নিয়ে আপনি ব্লগিং করলে আপনার ব্লগ এর ভবিষ্যৎ অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।

3. Health and Fitness 

হেলথ এন্ড ফিটনেস অর্থাৎ স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে আপনি ব্লগিং করতে পারেন খুব সহজেই এ বিষয়ে ব্লগিং করা যেমন সহজ তেমনি এ বিষয়ে আপনি ভিজিটর বেশি পাবেন। এবং এই নিয়ে কাজ করলে আপনার ব্লগের ভবিষ্যত খুব উজ্জ্বল হবে। কেননা মানুষ তার স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস এর জন্য সব সময় চেষ্টা করে থাকে এজন্য অনেকেই মানে অধিকাংশ লোকই এ বিষয়ে খোঁজাখুঁজি করে কিভাবে নিজের শরীর স্বাস্থ্য সুস্থ রাখা যায়.

 এজন্য এ বিষয়ে আপনি ব্লগিং করলে আশানুরূপ ফল পাবেন। কেননা স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস নিয়ে সব সময় সবাই একটু বিবেচনা করে। তাই দেখা যায় প্রায় সব মানুষই গুগলে এগুলো খোঁজাখুঁজি করে। এজন্য আপনি এ বিষয়ে ব্লগিং করলে আপনার ভিজিটর অভাব হবে না এবং আপনার ব্লগকে খুব সফল ভাবে ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল করতে পারবে।

 স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস এর উপর আপনি মাল্টিপল ব্লগিং করতে পারেন যেমন ছোট ছোট নিস বা মাইক্রো নিসে বিভক্ত করে। আপনি ছোট ছোট ব্লগিং করতে পারেন এবং ফিটনেস এর মাইক্রো নিস এর নাম নিচে দেয়া হল।
  1. ডায়াবেটিস
  2.  হাই অথবা লো প্রেসার
  3.  স্কিন সমস্যার সমাধান
  4.  স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
  5. যৌন বিষয়ক

4. Education 

আমরা সবাই জানি যে বর্তমান সব লেখাপড়ায় অনলাইন ভিত্তিক হয়ে গেছে অর্থাৎ ক্লাস ফাইভ থেকে উপরে যত দূর অব্দি ক্লাস রয়েছে যেমন আইএ, বিএ, এমএ, বিসিএস ইত্যাদি সমস্ত লেখাপড়া গুলো এখন অনলাইন ভিত্তিক হয়ে থাকে। তাই এ বিষয়ে ব্লগিং করে সফল হওয়াটা খুব একটা কঠিন কাজ নয়।

বর্তমান সময়ের ডিজিটাল যুগে ছাত্রছাত্রীরা বইয়ের পাতায় মুখ গুঁজে বসে নেই। তারা এখন এই চিন্তায় করে যে গুগল থেকে পিডিএফ বই ডাউনলোড করে সবসময় মোবাইলে বই পড়ার।
এছাড়াও ছাত্রছাত্রীরা যেকোনো ধরনের সাজেশন বইয়ের সমস্যার সমাধান ছোট নোট-গাইড ইত্যাদি সবসময় গুগলের সার্চ করে থাকে। এজন্য এ বিষয়ে অর্থাৎ শিক্ষা বিষয়ক যেকোন ব্লগিং করলে আপনি খুব অল্প সময়ে সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

 বর্তমান সময়ের ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকবৃন্দ অধিকাংশ লেখাপড়ার ক্ষেত্রে অনলাইনের উপর নির্ভরশীল। যেকোনো বই গাইড গল্পের বই ইত্যাদি যাবতীয় প্রয়োজনীয় তথ্য তারা সবসময় গুগোল থেকে খুব সহজে হাতের নাগালে মোবাইল থেকে বের করেন। এজন্য এডুকেশন বা শিক্ষামূলক ব্লগ খুব দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারে। শিক্ষা বিষয়ে আপনি তিনটি ক্যাটাগরিতে ব্লগিং করতে পারেন:
  1. পিডিএফ বুক ডাউনলোড
  2. গাইড অর নট ডাউনলোড
  3.  লেখাপড়া বিষয়ক সমস্ত তথ্য

5. Food & Recipe 

বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় একটি ব্লগিং  নিস বা টপিকস ফুড এবং রেসিপি. ভোজন প্রিয় মানুষগুলো প্রায় সব সময় নতুন নতুন রেসিপি খুঁজে গুগোল ইউটিউব এ সার্চ করে থাকেন। এরা সব সময় নতুন নতুন খাবারের রেসিপি এর জন্য গুগলে সার্চ করে থাকেন। অতএব বর্তমান সময়ে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এবং রেসিপি নিয়ে একটা ব্লগিং করলে অবশ্যই আপনি সফলতা লাভ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি ফাষ্ট ফুড এর ব্লগিং করতে পারেন পাশাপাশি বিদেশি ব্লগিং করতে পারেন। যেটা করুন না কেন অবশ্যই সফলতা লাভ করতে পারবেন.

5. Motivational

মোটিভেশনাল বা অনুপ্রেরণামূলক লোকের চাহিদা বর্তমানে খুব বেশি। কেননা প্রতিটি মানুষের সফল হতে চায়। সফলতা পাওয়ার আশায় সব মানুষই বসে থাকে কিন্তু অনেকেই জানেনা কিভাবে সফলতা অর্জন করতে হয়। অথবা অনেকে সঠিক পথে না গিয়ে ভুল পথে ভুল রাস্তায় সফলতা অর্জন করতে চায়। এজন্য ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার গঠন এবং নিজের পায়ে প্রতিষ্ঠিত হবার জন্য মোটিভেশনাল অনুপ্রেরণামূলক ব্লগ এর চাহিদা বর্তমানে ইয়াং জেনারেশন এর জন্য খুব বেশি প্রয়োজন। 
 বর্তমান সময়ের বেকার ইয়াং জেনারেশনের ছেলেমেয়েরা অনুব্রত অনলাইনে এ বিষয়ে সার্চ করে থাকে। কিভাবে নিজের পায়ে দাঁড়ানো যায় অথবা কিভাবে নিজের সুন্দর ক্যারিয়ার তৈরি করব। সে বিষয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করে একটি ব্লগ তৈরি করলে খুব উৎসাহ এবং রেসপন্স পাবেন এবং সফল হতে পারবে.


6. Fashion 

কেইবা নাচায় স্মার্ট হতে সবাই তো চায় একটু গোছালো হতে একটু স্মার্ট হতে কিন্তু সবাই নিজের বুদ্ধি দিয়ে বেড়ে ওঠে না। যার কারণে তারা গুগলে খোঁজাখুঁজি করে, কিভাবে একটি ফ্যাশন বা স্টাইলিশ অথবা স্মার্ট হওয়া যায়.

এই আধুনিক যুগে যেহেতু সবাই স্মার্ট হতে চায় সেহেতু এই বিষয়ে ব্লগিং করলে অবশ্যই সফলতা অর্জন করার সম্ভাবনা 99 শতাংশ। যুগোপযোগী যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এই ধরনের ব্লগের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি। কিন্তু প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম যার কারণে এটা কম্পিটিশন কম। কিন্তু প্রয়োজনীয় বেশি অতএব ফ্যাশন স্টাইলিশ নিয়ে ব্লগিং করলে আপনি খুব দ্রুত সফলতা অর্জন করতে পারবেন.

7. Tips & Tricks

 বর্তমান সময়ের প্রয়োজনীয় একটি বিষয় হচ্ছে টিপস-এন্ড-ট্রিকস আপনি যে বিষয়ের উপরে যতোটুকু যোগ্যতা বা অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন সেই বিষয়ের উপরে টিপস-এন্ড-ট্রিকস ওয়েবসাইট বা ব্লগে করলে আপনি খুব তাড়াতাড়ি সফলতা অর্জন করতে পারবেন।
এমন লোক দেখা যায় না বললেই চলে যারা টিপস-এন্ড-ট্রিকস নিতে চায় না। প্রায় অধিকাংশ লোকই টিপস-এন্ড-ট্রিকস এর প্রতি আগ্রহ থাকে। 

অতএব আপনি বিভিন্ন বিষয় বেছে বেছে টিপস-এন্ড-ট্রিকস এর ব্লক করতে পারেন। যেগুলো মানুষের দৈনন্দিন জীবনে প্রয়োজনীয়. নিত্য প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো নিয়ে ব্লগিং করলে মানুষের জীবনের চাহিদা মেটানো যায়। তেমনি ব্লগের সফলতাও বারে তাড়াতাড়ি এছাড়াও আপনার উপার্জন খুব দ্রুত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে.
টিপস-এন্ড-ট্রিকস বর্তমান সময়ের খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় একটি টপিক। এই বিষয়ে কয়েকটি  নিস বা টপিকস এর নাম নিচে উল্লেখ করা হলো.
  1. Android tricks
  2. Online tricks
  3. Gaming tips & tricks 
  4. Social media tips
  5. Health tips
  6. Computer tips and tricks

8. Job news

বর্তমান সময়ের অতি প্রয়োজনীয় একটি টপিক জব নিউজ। দেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বেশি হওয়ায় অধিকাংশ মানুষ গুগলে চাকরি সম্পর্কিত বা চাকরি পাওয়ার জন্য বিজ্ঞপ্তি বা বিজ্ঞাপন খুঁজে থাকে। এজন্য প্রায় সব ধরনের জব পোস্ট রিলেটেড ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি থাকে। এবং এটি সারা বছর থাকে। এই বিষয়ে এই টপিকস এর চাহিদা সব সময় বেশি থাকে অতএব এই বিষয়ে যদি আপনি ব্লগিং করেন তাহলে অবশ্যই দ্রুত সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

তবে অন্যান্য বিষয়ের থেকে এই বিষয়ে আপনাকে একটু বেশি কঠিন পরিশ্রম করতে হবে। কেননা জব নিউজ টপিকস নিয়ে অধিকাংশ লোক কাজ করে থাকেন। যেহেতু এই নিয়ে কাজ অধিক মানুষ করে থাকে, সেহেতু এই বিষয়ে প্রতিযোগী অনেক বেশি তাই এই বিষয়ে একবার রেংকিং বা টপ লেভেল উঠতে পারলে আপনার ব্লগের চাহিদা অনেক গুন বেড়ে যাবে.


9. News

প্রতিনিয়ত চারদিকের ঘটিত ঘটনা গুলো আমরা নিউজপেপার ওয়েবসাইটে গিয়ে পড়তে পারে। প্রতিদিন হাজার হাজার লোক নিউজপেপার ওয়েবসাইটে গিয়ে নিউজ পড়ে থাকেন। এখন আর কেউ টাকা দিয়ে পেপার-পত্রিকা না কিনে সভায় মোবাইলের মাধ্যমে ফ্রি নিউজ ওয়েবসাইটে গিয়ে খবর দেখেন। যেহেতু মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় খবর দেখা বা পড়া সেতু আপনি এই বিষয় নিয়ে একটি ব্লগিং করতে পারেন কেননা এই বিষয়ের চাহিদা সব সময় থেকেই যাবে। যেমন অতীতে ছিল এবং বর্তমানে আছে।

কিন্তু এই নিউজ বিষয়ে আপনাকে কাজ করতে হলে খুব দক্ষ এবং পরিশ্রমই হতে হবে এবং প্রতিনিয়ত আপডেট থাকতে হবে। অতীতকাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত এবং ভবিষ্যৎকালে এই নিউজ এর চাহিদা থেকে যাবে। তাই এ বিষয়ে ব্লগিং করলে এবং বেশি পরিশ্রম করলে সফলতা খুব দ্রুত অর্জন করতে পারবেন। এই নিউজ বিষয় যেমন প্রতিযোগী অনেক বেশি তেমনি ভিজিটর অনেক বেশি.

উপরের নিস বা টপিকগুলো নিয়ে আপনি ব্লগিং করলে বেশি পরিমাণে প্রফিট পাবেন। এ বিষয়ে মানুষের আগ্রহ সব সময় বেশি রয়েছে.

পোস্ট বিষয়ক কোন প্রশ্ন বা জিজ্ঞাসা থাকলে কমেন্ট করুন. পোস্টটি ভাল লাগলে অবশ্যই আপনার মত বন্ধুদের শেয়ার করতে ভুলবেন না. যেকোনো প্রয়োজনে বা সাহায্য দরকার হলে অবশ্যই কন্ট্যাক্ট পেজে গিয়ে যোগাযোগ করুন.
        >জাযাকাল্লাহ খায়ের<

1 Comments

Post a Comment
Previous Post Next Post